ঢাকা ১১:২৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কবিতাঃ- “রিক্সাওয়ালা আরজ আলী” — অমি রেজা।

রাইসা ইসলাম
  • আপডেট সময় : ০৪:১৭:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৫১৩২ বার পড়া হয়েছে

রিক্সাওয়ালা আরজ আলী
—অমি রেজা

হাতে ধরা টুংটাং ঘন্টি আর তিন চাকা সম্বল করে
রাজপথ,গলিপথ চষে বেরায় আরজ আলী
সকাল থেকে দুপুর,দুপুর থেকে সন্ধ্যা,সন্ধ্যা থেকে রাত-
অপুষ্ট শরীরের জোয়ান মরদ সে
মানুষ নয়,তুই তোকারির এক রিক্সাওয়ালা সে।

দু’চোখে তার যুগল ঘৃনা পুষে বয়ে চলেছে
অভিশপ্ত এক জীবনের ভার-
মাতৃ-পিতৃ পরিচয়হীন,লোকে বলে জারজ
রাস্তার বেওয়ারিশ কুকুর আর তার মাঝে তফাৎ দেখেনা সে ।

তিন চাকা আর টুংটাং ঘন্টি আঁকড়ে ধরে
পিচঢালা পথ মাড়িয়ে ছুটে চলে সে
শহরের অলিতে গলিতে,
প্রখর র্সূয্য তাপকে উপেক্ষা করে
নিজেকে পুড়িয়ে অঙ্গার বনে সে।

তামাটে বর্নের আরজ আলী রাত হলে ডুবে যায়
বাংলা,চোলাই মদের ঢেলায়
কখনও গাঁজার নেশায় বুঁদ হয়ে থাকে
খুঁজে ফিরে মাতৃ স্নেহ,পিতার আদর
বঞ্চিত তার বুকের ক্ষত যত ।

তার কোন স্বপ্ন নেই
আছে হাড্ডিসার দেহ,অরুচি,বিবমিষা
রাতের নগরীতে আলো ঝলমলে আলেয়া দেখে সে
সুউচ্চ অট্টালিকা,চকচকে গাড়ী,ঝকমকে মানুষ দেখে সে
গাঁজার নেশায় রঙ্গিন চোখে নানা রঙ্গের ফুল দেখে সে।

অজস্র মানুষ,অজস্র মুখোশধারী ফুটপাত,বস্তী,গণিকালয়
অনাচার,পাপাচারে লিপ্ত মধ্যরাতের এই তিলোত্তমা নগরী,
হায় কে রাখে খবর?
ফিটফাট পোষাকের আবডালে লুকিয়ে আছে
তার মত হাজারো বঞ্চিত অপত্যের পিতা-মাতা,
আরজ আলী আকাশ দেখে
আরজ আলী গুমোট বুকে ঘৃনা পুষে
অন্ধকার আকাশে শুকতারা খুঁজে ফিরে সে
প্রশ্ন করে সে কে দিলো তাকে এমন জীবন?

প্রশ্নরা প্রশ্নই থেকে যায়?
আরজ আলীরা নর্দমার কীট হয়েই বেঁচে থাকে
এই সমাজ,সংসারে।

কবি পরিচিতি:-
অমি রেজার জন্ম ঢাকায়, স্কুল,কলেজ,এরপর ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয় থেকে এম.কম(ফাইন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং) করেছেন।লেখালেখি তার অন্যতম শখ।
অমর একুশে বইমেলা ২০১৮-তে তার একটি “যৌথ গল্প গ্রন্থ” প্রকাশিত হয়।২০১৯ এ প্রকাশিত হয় “তোমার আমার গল্প” নামে অমি রেজা র প্রথম একক গল্প সংকলন। ২০২০ এ একুশে বর্ণমালা যৌথ কাব্য গ্রন্থে অংশগ্রহণ করেন। ২০২১ এ তার তিনটি যৌথ কাব্য গ্রন্থ প্রকাশিত হয়। ২০২২ এ দুইটি যৌথ কাব্য গ্রন্থ প্রকাশিত হয়। ২০২৩ এ একক কাব্যগ্রন্থ “বুকের গহীণে সমুদ্র” প্রকাশিত হয়।
পুরস্কারঃ বিভিন্ন অনলাইন সাহিত্য সংগঠন ও সাহিত্য পত্রিকা থেকে অসংখ্য সম্মাননা স্মারক, স্বর্ণ পদক, ক্রেস্ট পেয়েছেন।

শেয়ার করুন :

কবিতাঃ- “রিক্সাওয়ালা আরজ আলী” — অমি রেজা।

আপডেট সময় : ০৪:১৭:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২৩

রিক্সাওয়ালা আরজ আলী
—অমি রেজা

হাতে ধরা টুংটাং ঘন্টি আর তিন চাকা সম্বল করে
রাজপথ,গলিপথ চষে বেরায় আরজ আলী
সকাল থেকে দুপুর,দুপুর থেকে সন্ধ্যা,সন্ধ্যা থেকে রাত-
অপুষ্ট শরীরের জোয়ান মরদ সে
মানুষ নয়,তুই তোকারির এক রিক্সাওয়ালা সে।

দু’চোখে তার যুগল ঘৃনা পুষে বয়ে চলেছে
অভিশপ্ত এক জীবনের ভার-
মাতৃ-পিতৃ পরিচয়হীন,লোকে বলে জারজ
রাস্তার বেওয়ারিশ কুকুর আর তার মাঝে তফাৎ দেখেনা সে ।

তিন চাকা আর টুংটাং ঘন্টি আঁকড়ে ধরে
পিচঢালা পথ মাড়িয়ে ছুটে চলে সে
শহরের অলিতে গলিতে,
প্রখর র্সূয্য তাপকে উপেক্ষা করে
নিজেকে পুড়িয়ে অঙ্গার বনে সে।

তামাটে বর্নের আরজ আলী রাত হলে ডুবে যায়
বাংলা,চোলাই মদের ঢেলায়
কখনও গাঁজার নেশায় বুঁদ হয়ে থাকে
খুঁজে ফিরে মাতৃ স্নেহ,পিতার আদর
বঞ্চিত তার বুকের ক্ষত যত ।

তার কোন স্বপ্ন নেই
আছে হাড্ডিসার দেহ,অরুচি,বিবমিষা
রাতের নগরীতে আলো ঝলমলে আলেয়া দেখে সে
সুউচ্চ অট্টালিকা,চকচকে গাড়ী,ঝকমকে মানুষ দেখে সে
গাঁজার নেশায় রঙ্গিন চোখে নানা রঙ্গের ফুল দেখে সে।

অজস্র মানুষ,অজস্র মুখোশধারী ফুটপাত,বস্তী,গণিকালয়
অনাচার,পাপাচারে লিপ্ত মধ্যরাতের এই তিলোত্তমা নগরী,
হায় কে রাখে খবর?
ফিটফাট পোষাকের আবডালে লুকিয়ে আছে
তার মত হাজারো বঞ্চিত অপত্যের পিতা-মাতা,
আরজ আলী আকাশ দেখে
আরজ আলী গুমোট বুকে ঘৃনা পুষে
অন্ধকার আকাশে শুকতারা খুঁজে ফিরে সে
প্রশ্ন করে সে কে দিলো তাকে এমন জীবন?

প্রশ্নরা প্রশ্নই থেকে যায়?
আরজ আলীরা নর্দমার কীট হয়েই বেঁচে থাকে
এই সমাজ,সংসারে।

কবি পরিচিতি:-
অমি রেজার জন্ম ঢাকায়, স্কুল,কলেজ,এরপর ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয় থেকে এম.কম(ফাইন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং) করেছেন।লেখালেখি তার অন্যতম শখ।
অমর একুশে বইমেলা ২০১৮-তে তার একটি “যৌথ গল্প গ্রন্থ” প্রকাশিত হয়।২০১৯ এ প্রকাশিত হয় “তোমার আমার গল্প” নামে অমি রেজা র প্রথম একক গল্প সংকলন। ২০২০ এ একুশে বর্ণমালা যৌথ কাব্য গ্রন্থে অংশগ্রহণ করেন। ২০২১ এ তার তিনটি যৌথ কাব্য গ্রন্থ প্রকাশিত হয়। ২০২২ এ দুইটি যৌথ কাব্য গ্রন্থ প্রকাশিত হয়। ২০২৩ এ একক কাব্যগ্রন্থ “বুকের গহীণে সমুদ্র” প্রকাশিত হয়।
পুরস্কারঃ বিভিন্ন অনলাইন সাহিত্য সংগঠন ও সাহিত্য পত্রিকা থেকে অসংখ্য সম্মাননা স্মারক, স্বর্ণ পদক, ক্রেস্ট পেয়েছেন।