ঢাকা ০৯:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কবিতাঃ- “বানজারা মন” — সোমনাথ সিংহ রায়।

রাইসা ইসলাম
  • আপডেট সময় : ০১:৫৮:৪৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৮ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৫১৩৬ বার পড়া হয়েছে

স্মৃতির পাতা থেকে…..

“বানজারা মন”

 —সোমনাথ সিংহ রায় 

 

 

এই পৃথিবী চলনা, একটু ঘুরে আসি

নিত্যের পথে পা মেলানো এখন ভীষণ বাসি

চোখের সামনে যা কিছু দেখি সব যেন বড় স্থির

শুধু বুকের ভেতর উথাল পাথাল, ভীষণ অস্থির |

 

অস্থির মন চলনা, কোন শান্ত নদীর তীরে

নদীকে বলি, এই শ্রাবণে যৌবন পাস ফিরে

দেখবো আমি দুচোখ ভরে ভরা যৌবন নৃত্য

কথা দিলাম দেবনা বাঁধ, রাখবোনা কোন বৃত্ত |

 

সময়কে বলি, আবরিত হও নগ্নতা আর নয়•••••

নগ্ন সময় তাড়া করে ফেরে অন্তরে বাহিরে ভয় !

যাওয়া আসার এই দ্বৈরথ পরাভূত হোক আজ

মুখরিত হোক নির্বাক অঙ্গে বরষা রুদ্র সাজ |

 

বন্ধন ছিঁড়ে, এদিক সেদিক চলনা বেরিয়ে পড়ি••••

শৃঙ্খল ভেঙে, বেড়ি খুলে ফেলে নতুন পৃথিবী গড়ি

বানজারা হোক হৃদয় আমার এই বরষা মুখর দিনে

ভরিয়ে দিতে আকাশ বাতাস মুক্তির জয়গানে ||

 

কবি পরিচিতিঃ-

কবি সোমনাথ সিংহ রায়। জন্ম ১২ই ডিসেম্বর, ১৯৫৪ কলকাতার কসবায় এক মধ্যবিত্ত প্রগতিশীল যৌথ পরিবারে। পিতা: ৺রণজিত সিংহ রায়, মাতা ৺সুরমা সিংহ রায়। চার ভাই ও এক বোনের মধ্যে তৃতীয় জন। এর মধ্যে চারজনই লেখালেখির সঙ্গে যুক্ত।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞানে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করার পর বিভিন্ন পেশায় নিযুক্ত এবং সর্বশেষে বালিগঞ্জ বিজ্ঞান কলেজ, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র এ্যসিস্টেন্ট পদ থেকে অবসর গ্ৰহণ এবং বর্তমানে একটি ভ্রমণ সংস্থা পরিচালনার কর্মে রত।

দায়বদ্ধ নামে একটি ত্রৈমাসিক সাহিত্য পত্রিকা গড়ে তোলা ও পরিচালনার দায়িত্বে গোড়ার থেকেই উদ্যোগ গ্ৰহণ। পরবর্তীতে দায়বদ্ধ সাংস্কৃতিক সংস্থা গঠন ও সম্পাদকের দায়িত্ব পালন। বর্তমানে পত্রিকাটি অনলাইন গ্ৰুপ হিসেবেই পরিচিত।

সম্প্রতি কলকাতা বইমেলায়(২০২৩)প্রকাশিত একক বই নষ্ট্যালজিক বারান্দা। এছাড়াও বিভিন্ন পত্রিকা ও গ্ৰুপে নিয়মিত প্রকাশিত হয় কবিতা ও মাঝেমধ্যে ছোট গল্প। কবিতা নিয়ে একটু বেশি রকম নাড়াচাড়া করলেও মুক্তছন্দের প্রতি আকর্ষণ ও নিজস্বতাই কবির বিশেষত্ব।

শেয়ার করুন :

কবিতাঃ- “বানজারা মন” — সোমনাথ সিংহ রায়।

আপডেট সময় : ০১:৫৮:৪৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৮ অগাস্ট ২০২৩

স্মৃতির পাতা থেকে…..

“বানজারা মন”

 —সোমনাথ সিংহ রায় 

 

 

এই পৃথিবী চলনা, একটু ঘুরে আসি

নিত্যের পথে পা মেলানো এখন ভীষণ বাসি

চোখের সামনে যা কিছু দেখি সব যেন বড় স্থির

শুধু বুকের ভেতর উথাল পাথাল, ভীষণ অস্থির |

 

অস্থির মন চলনা, কোন শান্ত নদীর তীরে

নদীকে বলি, এই শ্রাবণে যৌবন পাস ফিরে

দেখবো আমি দুচোখ ভরে ভরা যৌবন নৃত্য

কথা দিলাম দেবনা বাঁধ, রাখবোনা কোন বৃত্ত |

 

সময়কে বলি, আবরিত হও নগ্নতা আর নয়•••••

নগ্ন সময় তাড়া করে ফেরে অন্তরে বাহিরে ভয় !

যাওয়া আসার এই দ্বৈরথ পরাভূত হোক আজ

মুখরিত হোক নির্বাক অঙ্গে বরষা রুদ্র সাজ |

 

বন্ধন ছিঁড়ে, এদিক সেদিক চলনা বেরিয়ে পড়ি••••

শৃঙ্খল ভেঙে, বেড়ি খুলে ফেলে নতুন পৃথিবী গড়ি

বানজারা হোক হৃদয় আমার এই বরষা মুখর দিনে

ভরিয়ে দিতে আকাশ বাতাস মুক্তির জয়গানে ||

 

কবি পরিচিতিঃ-

কবি সোমনাথ সিংহ রায়। জন্ম ১২ই ডিসেম্বর, ১৯৫৪ কলকাতার কসবায় এক মধ্যবিত্ত প্রগতিশীল যৌথ পরিবারে। পিতা: ৺রণজিত সিংহ রায়, মাতা ৺সুরমা সিংহ রায়। চার ভাই ও এক বোনের মধ্যে তৃতীয় জন। এর মধ্যে চারজনই লেখালেখির সঙ্গে যুক্ত।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞানে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করার পর বিভিন্ন পেশায় নিযুক্ত এবং সর্বশেষে বালিগঞ্জ বিজ্ঞান কলেজ, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র এ্যসিস্টেন্ট পদ থেকে অবসর গ্ৰহণ এবং বর্তমানে একটি ভ্রমণ সংস্থা পরিচালনার কর্মে রত।

দায়বদ্ধ নামে একটি ত্রৈমাসিক সাহিত্য পত্রিকা গড়ে তোলা ও পরিচালনার দায়িত্বে গোড়ার থেকেই উদ্যোগ গ্ৰহণ। পরবর্তীতে দায়বদ্ধ সাংস্কৃতিক সংস্থা গঠন ও সম্পাদকের দায়িত্ব পালন। বর্তমানে পত্রিকাটি অনলাইন গ্ৰুপ হিসেবেই পরিচিত।

সম্প্রতি কলকাতা বইমেলায়(২০২৩)প্রকাশিত একক বই নষ্ট্যালজিক বারান্দা। এছাড়াও বিভিন্ন পত্রিকা ও গ্ৰুপে নিয়মিত প্রকাশিত হয় কবিতা ও মাঝেমধ্যে ছোট গল্প। কবিতা নিয়ে একটু বেশি রকম নাড়াচাড়া করলেও মুক্তছন্দের প্রতি আকর্ষণ ও নিজস্বতাই কবির বিশেষত্ব।