ঢাকা ০৯:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মনোজ কুমার রথের কবিতা গভীরে চলে গেছে আমার অস্তিত্বের শিকড়

কবিতাঃ- “গভীরে চলে গেছে আমার অস্তিত্বের শিকড়” — মনোজ কুমার রথ।

রাইসা ইসলাম
  • আপডেট সময় : ১২:৪৫:২০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৪ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৫১১৪ বার পড়া হয়েছে

গভীরে চলে গেছে আমার অস্তিত্বের শিকড়

    —মনোজ কুমার রথ

 

 

পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে চাঁদের কাছে চলে গেল চন্দ্রযান,

আমি কিন্তু আজও তোমার মায়া কাটাতে পারিনি,

চাইও না কখনও, শ্রীতমা!

তুমি আমার পৃথিবী,

তুমি আমার সমস্ত আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু,

তুমি আমার এই বর্ষনমুখর শ্রাবণী পূর্ণিমাতেও

আলোকিত ইন্দু,

তুমি আমার বিন্দু বিন্দু সঞ্চিত কাঁসার থালায় ভর্তি নিবেদিত নৈবেদ্যর সম্মুখে দন্ডায়মান

শান্তিদাত্রী প্রসন্ন প্রতিমা!!

 

মালদা-মণিপুর অন্তঃকরণে রক্ত ঝরিয়েছে অনেক!

অস্থায়ী ছোট্ট এক কামরায়

নিজস্ব অধিকার প্রয়োগের আয়োজনেও

দাঙ্গার দগদগে ক্ষত,

যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে সংবেদী বিবেক!

এক এক করে মামলা খেয়ে ফেলছে

বেকার তরুণ তরুণীর চোখের সোনালী স্বপ্ন!!

জানি; দেখি,দেখছি……

চেয়ে আছি আর পাঁজ্জনের মতোই পাথুরে চোখ নিয়ে!

 

পৃৃথিবীর মায়া কাটিয়ে চাঁদকে ছুঁতে চলে গেল চন্দ্রযান,

নীচে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে অগণিত মানুষ,

রাস্তার রক্তের দাগ ডিঙিয়ে ডিঙিয়ে হাঁটছে

পথপ্রেমী পথিক,

শকুনগুলো চেয়ে আছে সুতীক্ষ্ণ দৃষ্টি নিয়ে,

সেতুগুলোতে ফাটল;

মায়া কাটাতে পারেনি বলেই

রোজই অফিস টাইমে অটোস্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে

একটা মেয়ের দিকে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে

বোকার মতো হেসে ওঠে

প্রতারণার বুলেটে বিদ্ধ একটা পাগল…

 

আগল রাখোনি তুমি…

অবতারণা করোনি

সোনার হরিণ ধরে দেওয়ার আব্দারের;

তাই এতো মায়া,

তাই এতো ছায়া,

তাই এতো টান মন ছুঁয়ে কায়ায় কায়ায়…

তাই তোমার অতি গভীরে চলে গেছে

আমার অস্তিত্বের সুদূরপ্রসারী শিকড় l

 

 

কবি পরিচিতি:-

মনোজ কুমার রথ; পিতা: শ্রীযুক্ত অশোক কুমার রথ, মাতা: শ্রীমতী দুর্গারাণী; পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া জেলার অন্তর্গত রাইপুর থানার প্রত্যন্ত গ্রামে জন্ম এবং বর্তমানে কর্মসুত্রে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার রাজপুর-সোনারপুর পৌরসভার বাসিন্দা; উচ্চ-মাধ্যমিক পড়াকালীন লেখালেখি শুরু; লিটিল ম্যাগাজিন “শায়ক”, “একুশের ডাক”, “আজকের অনুভব”, “অনুভবের আয়না”, “বঙ্গীয় সাহিত্য দর্পণ”, “সংকল্পে কলম” সহ অনেকগুলি ম্যাগাজিনে কবির লেখা প্রকাশিত হয়েছে এবং হয়ে চলছে।

শেয়ার করুন :

মনোজ কুমার রথের কবিতা গভীরে চলে গেছে আমার অস্তিত্বের শিকড়

কবিতাঃ- “গভীরে চলে গেছে আমার অস্তিত্বের শিকড়” — মনোজ কুমার রথ।

আপডেট সময় : ১২:৪৫:২০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৪ অগাস্ট ২০২৩

গভীরে চলে গেছে আমার অস্তিত্বের শিকড়

    —মনোজ কুমার রথ

 

 

পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে চাঁদের কাছে চলে গেল চন্দ্রযান,

আমি কিন্তু আজও তোমার মায়া কাটাতে পারিনি,

চাইও না কখনও, শ্রীতমা!

তুমি আমার পৃথিবী,

তুমি আমার সমস্ত আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু,

তুমি আমার এই বর্ষনমুখর শ্রাবণী পূর্ণিমাতেও

আলোকিত ইন্দু,

তুমি আমার বিন্দু বিন্দু সঞ্চিত কাঁসার থালায় ভর্তি নিবেদিত নৈবেদ্যর সম্মুখে দন্ডায়মান

শান্তিদাত্রী প্রসন্ন প্রতিমা!!

 

মালদা-মণিপুর অন্তঃকরণে রক্ত ঝরিয়েছে অনেক!

অস্থায়ী ছোট্ট এক কামরায়

নিজস্ব অধিকার প্রয়োগের আয়োজনেও

দাঙ্গার দগদগে ক্ষত,

যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে সংবেদী বিবেক!

এক এক করে মামলা খেয়ে ফেলছে

বেকার তরুণ তরুণীর চোখের সোনালী স্বপ্ন!!

জানি; দেখি,দেখছি……

চেয়ে আছি আর পাঁজ্জনের মতোই পাথুরে চোখ নিয়ে!

 

পৃৃথিবীর মায়া কাটিয়ে চাঁদকে ছুঁতে চলে গেল চন্দ্রযান,

নীচে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে অগণিত মানুষ,

রাস্তার রক্তের দাগ ডিঙিয়ে ডিঙিয়ে হাঁটছে

পথপ্রেমী পথিক,

শকুনগুলো চেয়ে আছে সুতীক্ষ্ণ দৃষ্টি নিয়ে,

সেতুগুলোতে ফাটল;

মায়া কাটাতে পারেনি বলেই

রোজই অফিস টাইমে অটোস্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে

একটা মেয়ের দিকে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে

বোকার মতো হেসে ওঠে

প্রতারণার বুলেটে বিদ্ধ একটা পাগল…

 

আগল রাখোনি তুমি…

অবতারণা করোনি

সোনার হরিণ ধরে দেওয়ার আব্দারের;

তাই এতো মায়া,

তাই এতো ছায়া,

তাই এতো টান মন ছুঁয়ে কায়ায় কায়ায়…

তাই তোমার অতি গভীরে চলে গেছে

আমার অস্তিত্বের সুদূরপ্রসারী শিকড় l

 

 

কবি পরিচিতি:-

মনোজ কুমার রথ; পিতা: শ্রীযুক্ত অশোক কুমার রথ, মাতা: শ্রীমতী দুর্গারাণী; পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া জেলার অন্তর্গত রাইপুর থানার প্রত্যন্ত গ্রামে জন্ম এবং বর্তমানে কর্মসুত্রে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার রাজপুর-সোনারপুর পৌরসভার বাসিন্দা; উচ্চ-মাধ্যমিক পড়াকালীন লেখালেখি শুরু; লিটিল ম্যাগাজিন “শায়ক”, “একুশের ডাক”, “আজকের অনুভব”, “অনুভবের আয়না”, “বঙ্গীয় সাহিত্য দর্পণ”, “সংকল্পে কলম” সহ অনেকগুলি ম্যাগাজিনে কবির লেখা প্রকাশিত হয়েছে এবং হয়ে চলছে।